বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ০১:১৪ পূর্বাহ্ন

টঙ্গীবাড়ীতে অস্বাভাবিক ভূতুড়ে বিদ্যুৎ বিলের প্রতিবাদে মানববন্ধণ।

লেখক
  • প্রকাশিত শনিবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২১
  • ৭০ দেখা হয়েছে

টঙ্গীবাড়ীতে অস্বাভাবিক ভূতুড়ে বিদ্যুৎ বিলের প্রতিবাদে মানববন্ধণ।
মোঃ রনি শেখ টঙ্গীবাড়ী (মুন্সিগঞ্জ)থেকে।। মুন্সিগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে পল্লী বিদুৎতের অস্বাভাবিক ভূতুড়ে বিদুৎ বিলের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। টঙ্গিবাড়ী উপজেলার সর্বস্তরের জনগণের ব্যানারে বিক্রমপুর টঙ্গিবাড়ী প্রেস ক্লাবের সামনে আজ শনিবার (৩০ অক্টোবর) বেলা ১১টা হতে ১২টা পর্যন্ত এ মানববন্ধণ কর্মসূচি পালন করা হয়। এ সময় মানববন্ধনে ওই পথে যাতায়াতকারী পথচারীরাও একাত্ত্বত্বা প্রকাশ করেন। মানববন্ধনকারীরা বলেন, বিগত প্রায় ৬ মাস ধরে অস্বাভাবিক বিদুৎ বিল পরিশোধ করতে করতে আমরা সর্বশান্ত । আগের তুলনায় এখোন কয়েকগুন বিদুৎ বিল আসছে। আমরা বিদুৎ অফিসে যোগাযোগ করলে তারা বলে আগামী মাস হতে সব ঠিক হয়ে যাবে বলে আশ্বস্ত করলেও মাসের পর মাস ধরে অস্বাভাবিক বিল আসছেই। সময়মতো বিল পরিশোধ না করলে বিদুৎ অফিসের লোকজন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করছে । বিছিন্ন সংযোগ পূনরায় নিতে গেলে ভূতুড়ে বিল পরিশোধের পাশাপাশি সংযোগ নিতে গুনতে হচ্ছে বাড়তি টাকা। এ সময় মানববন্ধণকারীরা এ অবস্থা হতে পরিত্রানের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করেন। সোনারং টঙ্গিবাড়ী ইউনিয়ন ৮নং ওয়ার্ড সদস্য শাহালম বলেন, আগে আমার বাড়িতে ৬ থেকে ৭ শত টাকা বিল আসতো । এ মাসে বিল আসছে ২৮শত টাকা আমরা এই ভূতুরে বিদুৎ বিল হতে পরিত্রান চাই। মুক্তিযোদ্ধা গিয়াসউদ্দিন মল্লিক বলেন, আগে আমার বাড়িতে সাড়ে ৪ শত থেকে ৫ শত টাকা বিল আসতো এখোন আসে ৩ হাজার হতে ৩২শত টাকা বিল আসে। বিদুৎ বিল দিতে গিয়ে আমরা সর্বশান্ত। গোয়ারা মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা ইলিয়াস বলেন, কয়েক মাস যাবৎ বিদুৎ বিল অনেক বেশি আসতেছে আমরা লাইন ম্যানকে বললাম তারা বলেন, আর আসবেনা। কিন্ত ৬ মাস যাবৎ অনাক্ষিত বিল আসছেই। সোনারং গ্রামের অটো গ্যারেজ মালিক সালাউদ্দিন মাদবর বলেন, আমি অটো চার্জ দিয়ে মাসে পাই ২০ হাজার টাকা। কিন্তু বিদুৎ বিল আসে ৩০ হাজার থেকে ৩৫ হাজার টাকা। আমার গ্যারেজে আটো গাড়ি আছে ৫টা এক মাসে বিল আসছে ৯০ হাজার টাকা। আমি বিদুৎ অফিসে বলছি তারা বলে অফিসে আইসেন কিছুটা কনসাট করে দিবো। আমি বিগত ২ বছর যাবৎ বিভিন্ন এনজিও হতে ঋণ করে বিদুৎ বিল পরিশোধ করেছি। পল্লি বিদুৎ আমারে নিংশ্ব করে দিয়েছে। এভাবে আমি পল্লি বিদুৎ বিল পরিশোধ করতে গিয়ে বিভিন্ন এনজিওর কাছে ১০ লক্ষ টাকা ঋণ হয়ে গেছি। এ ব্যাপারে টঙ্গিবাড়ী জোনাল অফিসের পল্লি বিদুৎতের ডিজিএম হযরত আলী বলেন, এ ধরনের অভিযোগ নিয়েতে আমার কাছে কেউ আসেনি। ভূল ত্রুটি হতে পারে আমাদের কাছে আসলে অবশ্যই আমরা সংশোধন করে দিবো। আপনার লাইন ম্যানরা সংশোধন করে দেয়না ভূক্তভোগীদের অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে সে আরো বলে, সরাসরি আমার কাছে পাঠাইয়েন তারা ন্যায় বিচার পাবে, অবশ্যই বিল সংশোধন করে দেওয়া হবে।
মোঃ রনি শেখ
টঙ্গীবাড়ী, মুন্সীগঞ্জ
তারিখ ৩০.১০.২০২১
মোবাইলঃ০১৯১২২৮৪৭৮৪

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত হেডলাইন বাংলাদেশ
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102